www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

April 21, 2024 6:53 am

খবরে আমরাঃ স্কুল সার্ভিস কমিশনের চতুর্থ শ্রেনীর কর্মী নিয়োগে দুর্নীতি হয়েছে। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশে গঠিত অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি রঞ্জিত বাগের নেতৃত্বাধীন কমিটি আদালতে রিপোর্ট দিয়ে তা জানিয়ে দিল। এই নিয়োগগুলি জন্য তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নির্দেশে গঠিত কমিশনের পাঁচ সদস্যের কমিটি বেআইনি বলে উল্লেখ করে তদন্ত কমিটি জানিয়ে দিয়েছে, মোট ৬০৯টি ভুয়ো সুপারিশপত্র দেওয়া হয়েছিল। এই সুপারিশ পত্র দেওয়ার জন্য ছিল আলাদা রেজিস্ট্রার। তদন্ত কমিটি রিপোর্টে উল্লেখ করেছে, কমিশনের চেয়ারম্যানকে অন্ধকারে রেখেই এই ভুয়ো নিয়োগের কাজ হয়েছে। তদন্ত কমিটির সুপারিশ, সুবীরেশ ভট্টাচার্য, শর্মিলা মিত্র, মহুয়া বিশ্বাস, শুভজিৎ চ্যাটার্জী, শেখ সিরাজউদ্দিন বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত এবং শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে পদক্ষেপ করা উচিত। পাশাপাশি সমরজিৎ আচার্য এবং প্রাক্তন উপদেষ্টা শান্তি প্রসাদ সিনহা ভুয়ো সুপারিশ পত্র তৈরি করেছেন। তাই তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা এবং ভুয়ো নথি বানানোর জন্য ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৪৬৫, ৪১৭, ৪৬৮ ও ৩৪ ধারায় এফআইআর দায়ের করা উচিত। অন্যদিকে সৌমিত্র সরকার, অশোক কুমার সাহা, সমরজিৎ আচার্য, শান্তি প্রসাদ সিনহা এবং কল্যাণময় গাঙ্গুলীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগে ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবিধির ১২০বি ধারায় এফআইআর করা উচিত। তদন্ত কমিটি উল্লেখ করেছে, এই সুপারিশ পত্রগুলি শান্তি প্রসাদ সিনহা নিজে কল্যাণময় গাঙ্গুলিকে দিয়েছেন, এবং কল্যাণময় গাঙ্গুলি নিজে নিয়োগপত্র ছাপার জন্য নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি রাজেশ লায়েক বলে একজন কর্মীকে এই নির্দেশ দিয়েছিলেন। এই নিয়োগপত্র গুলি পর্ষদের অফিস থেকে না দিয়ে এসএসসির নবনির্মিত ভবন থেকে দেওয়া হয়েছে। এদিন এই রিপোর্ট জমা দিয়ে তদন্ত কমিটির দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন প্রাক্তন বিচারপতি রঞ্জিত বাগ।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *