www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

June 19, 2024 3:46 pm
solar eclipse

চাঁদ যখন পরিভ্রমণরত অবস্থায় কিছু সময়ের জন্য পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে এসে পড়ে, তখন পৃথিবীর কোন দর্শকের কাছে সূর্য আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে অদৃশ্য হয়ে যায় (কিছু সময়ের জন্য)। এই ঘটনাকে সূর্যগ্রহণ বলা হয়।

জ্যোতিষশাস্ত্রে সূর্যগ্রহণের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। বৈদিক ক্যালেন্ডার অনুসারে প্রতি বছরই সূর্য ও চন্দ্রগ্রহণ হয়ে থাকে। যখনই সূর্য বা চাঁদে গ্রহণ লাগে, তার প্রভাব বিভিন্ন রাশির জাতকদের উপর পড়ে থাকে। ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে গ্রহণকে অশুভ ঘটনা হিসেবে মনে করা হয়। এই বছরে মোট চারটি গ্রহণ রয়েছে। তার মধ্যে দুটি সূর্যগ্রহণ ও দুটি চন্দ্রগ্রহণ। একটি সূর্যগ্রহণ ও একটি চন্দ্রগ্রহণ ইতিমধ্যেই সংঘটিত হয়েছে। এই বছরের দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ হতে চলেছে আগামী ১৪ অক্টোবর ২০২৩ শনিবার। সেদিন গ্রহণ লাগবে রাত ৮টা ৩৪ মিনিটে এবং গ্রহণ ছেড়ে যাবে ১৫ অক্টোবর রাত ২টো ২৫ মিনিটে। পঞ্জিকা অনুসারে সেদিন হল আশ্বিন মাসের অমাবস্যা তিথি। এই দিনেই পালিত হবে মহালয়া। এদিন থেকে পিতৃপক্ষের অবসানে শুরু হবে দেবীপক্ষ।

সূর্য বা চন্দ্র, যে কোনও গ্রহণই জ্যোতিষচর্চায় এক অপরিসীম ধর্মীয় গুরুত্ব রয়েছে। সূর্যগ্রহণের প্রভাবে প্রত্যেক মানুষের জীবনে নানা ঘটনা ঘটে বলে মনে করা হয়। চলতি বছরে শেষ ও দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ পালিত হবে ১৪ অক্টোবর। হিন্দু ক্য়ালেন্ডার মতে, ওই দিন অর্থাত্‍ ১৪ অক্টোবর পালিত হবে পিতৃপক্ষ বা মহালয়া। এ বছর মোট চারটি গ্রহণ রয়েছে। যার মধ্যে দুটি চন্দ্রগ্রহণ ও ২টি সূর্যগ্রহণ। এখনও পর্যন্ত একবার করেই পালিত হয়েছে সূর্য ও চন্দ্র গ্রহণ। বছরের দ্বিতীয় ও শেষ সূর্য়গ্রহণ পালিত হবে আগামী ১৪ অক্টোবর। পঞ্চাঙ্গ মতে, আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছএ পিতৃপক্ষ। একই সময়ে নবরাত্রি তথা মাতৃপক্ষ শুরু হচ্ছে ১৫ অক্টোবর থেকে। পাশাপাশি এদিন অনুষ্ঠিত হবে বছরের অন্যতম মহাজাগতিক ঘটনা, সূর্যগ্রহণ।

নিয়ম অনুযায়ী,সূতক সময় সূর্যগ্রহণের (Solar Eclipse) আগে শুরু হয়, যা গ্রহণের শেষ পর্যন্ত চলতে থাকে। এই সময় সমস্ত শুভকাজ করা নিষিদ্ধ। অক্টোবরে কবে ও কখন ঘটছে সূর্যগ্রহণ ও পিতৃপক্ষ, পুজোর সময় কতটা প্রভাব বিস্তার করবে, তা জেনে নিন এখানে…

পিতৃপক্ষ- মার্তৃপক্ষ

হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুসারে, এ বছর পিতৃপক্ষ শুরু হচ্ছে ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে। একই সময়ে,আগামী ১৪ অক্টোবর শেষ হবে এই পক্ষ। পিতৃপক্ষের (Mahalaya) অবসান হলেই শুরু হয় মাতৃপক্ষ। নারীশক্তির প্রতি শ্রদ্ধা জানাচেই শুরু নবরাত্রির (Navratri) উপবাস ও ব্রত অনুষ্ঠান। আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে মার্তৃপক্ষ। চলবে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত।

সময়

বছরের দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ ঘটতে চলেছে পিতৃপক্ষের শেষ দিনে অর্থাৎ ১৪ অক্টোবরে। এই দিনে আবার পড়েছে অমাবস্যার তিথি। একই সময়ে, নবরাত্রি শুরু হবে ১৫ অক্টোবর থেকে। ভারতীয় সময় অনুযায়ী, সূর্যগ্রহণ (Sun) ১৪ অক্টোবর, রাত ৮টা ৩৪মিনিট থেকে শুরু হবে ও রাত ২টো ২৫ মিনিট পর্যন্ত চলবে।

সুতক সময়কাল

বছরের শেষ সূর্যগ্রহণ শুধু আমেরিকা-সহ কয়েকটি দেশেই দেখা যাবে। এই মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী থাকবে না ভারতবাসী। তাই ভারতে সূতক সময় বৈধ হবে না। সূর্যগ্রহণের সূতক সময় গ্রহণ শুরু হওয়ার ১২ ঘন্টা আগে পালিত হয় ও সূর্যগ্রহণের শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই সমাপ্তি ঘটে।

প্রভাব

হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুসারে, এবছর নবরাত্রি শুরু হচ্ছে ১৫ অক্টোবর থেকে। এদিন সূর্যগ্রহণ অনুষ্ঠিত হলেও ভারতে দেখা যাবে না, তাই নবরাত্রিতে এর কোনও প্রভাব পড়বে না। নবরাত্রির উপবাস ও ব্রত পালন করলে ১৫ অক্টোবর থেকেই তা শুরু করতে পারেন।

২০২৩ সালের দ্বিতীয় সূর্য গ্রহণ

এপ্রিল মাসের পর অক্টোবরে বছরের দ্বিতীয় সূর্য গ্রহণ হবে। এই গ্রহণও ভারতে দেখা যাবে না। ১৪ অক্টোবর শনিবার বছরের দ্বিতীয় সূর্য গ্রহণ। এ বছরের কোনও সূর্য গ্রহণই ভারতে দেখা যাবে না বলে সূতক কালও মান্য হবে না। উল্লেখ্য, এটি আংশিক সূর্য গ্রহণ হবে। বছরের দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ পশ্চিম আফ্রিকা, উত্তর আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, আটলান্টিক ও আন্টার্কাটিকায় দেখা যাবে।

সূর্য গ্রহণে কী কী সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত

১. সূর্য গ্রহণের সময় কোনও নির্জন স্থানে যাবেন না। শ্মশানে যাওয়া থেকেও বিরত থাকুন। গ্রহণের সময় নেতিবাচক শক্তির ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তাই এ ধরনের স্থান এড়িয়ে চলুন।

২. সূর্য গ্রহণে দেব-দেবীর মূর্তি ঢেকে রাখা উচিত। এমনকি গ্রহণ শেষ না-হওয়া পর্যন্ত মূর্তিও স্পর্শ করবেন না। গ্রহণের সময় ঠাকুরঘরের দরজা খুললে বা মূর্তি স্পর্শ করলে পরিবারের সুখ-সমৃদ্ধি চলে যায়।

৩. সূর্য গ্রহণের সময়ে নেতিবাচক শক্তির প্রভাব চরমে থাকে। তাই এই সময়ে কোনও নতুন কাজ শুরু করা থেকেও বিরত থাকুন। তা না-হলে সেই কাজেও অশুভ প্রভাব পড়বে এবং তা সম্পূর্ণ হবে না।

৪. গ্রহণের সময়ে ঘুমাবেন না। সূচে সুতো পরাতে নেই। আবার যাত্রা করা থেকেও বিরত থাকুন।

৫. সূর্য গ্রহণের সময়ে ভুলেও কোনও দরিদ্র ব্যক্তির অপমান করবে না। এর ফলে সূর্য ও শনি উভয় ক্ষুব্ধ থাকতে পারেন।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *