www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

April 14, 2024 3:55 pm
মা তারা (Tara Ma)

ভাদ্র মাসের অমাবস্যা বলে একে ভাদ্রপদ অমাবস্যাও বলা হয়৷ গুপ্ত প্রেস পঞ্জিকা মতে ২৬ আগস্ট শুক্রবার দুপুর ১২ টা ১ মিনিট ৩২ সেকেন্ডে শুরু হচ্ছে কৌশিকী অমাবস্যা তিথি৷ থাকছে শনিবার দুপুর ১টা ২৩ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড পর্যন্ত৷ অন্য মতে, ২৬ আগস্ট শুক্রবার দুপুর ১২ টা ২৩ মিনিটে শুরু হবে কৌশিকী অমাবস্যা তিথি৷ এই তিথি ছেড়ে যাবে শনিবার ২৭ অগাস্ট দুপুর ১ টা ৪৬ মিনিটে৷

হিন্দু শাস্ত্র মতে অনেকেই রীতি মেনে কৌশিকি অমাবস্যার দিনটি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে থাকেন। কিন্তু অনেকেই জানেন না কেন এই দিনটি পালন করা হয়। এর গুরুত্ব কী।

কৌশিকী অমাবস্যা, অন্য সব অমাবস্যার থেকে একটু আলাদা, কারণ তন্ত্র মতে ও শাস্ত্র মতে ভাদ্র মাসের এই তিথিটি একটু বিশেষ। অনেক কঠিন ও গুপ্ত সাধনা এই দিনে করলে আশাতীত ফল মেলে। সাধক কুলকুণ্ডলিনী চক্রকে জয় করে। বৌদ্ধ ও হিন্দু তন্ত্রে এই দিনের এক বিশেষ মাহাত্ম্য আছে। তন্ত্র মতে এই রাতকে ‘তারা রাত্রি’ও বলা হয়৷ এক বিশেষ মুহূর্তে স্বর্গ ও নরক দুইয়ের দরজা মুহূর্তের জন্য খোলে ও সাধক নিজের ইচ্ছা মতো ধনাত্মক অথবা ঋণাত্মক শক্তি সাধনার মধ্যে আত্মস্থ করেন ও সিদ্ধি লাভ করেন৷

মা কৌশিকীর স্বরূপ (ব্যক্তিত্ব) খুব সুন্দর এবং বন্ধুত্বপূর্ণ। তার গায়ের রং গভীর নীলাভ আকাশ এবং সে একটি ছোট্ট মেয়ের রূপ যে তার হাতে বীণা নামক বাদ্যযন্ত্রটি ধরে আছে। রাক্ষস-শুম্ভ-নিশুম্ভ বধের পর, পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য, কৌশিকী মা মাধ্যম হিসাবে এটিকে বেছে নিয়েছিলেন। মা দুর্গা তার জন্য আকাশের সপ্তম স্তরে একটি সুন্দর দুর্গ তৈরি করেছিলেন যা তারার মতো উজ্জ্বল, যেখানে তিনি ক্রমাগত বীণা অনুশীলন করেন।

সাধকের জীবনে কৌশিকী অমাবস্যা (Koushiki Omabosya) উৎসবের মতো এবং মাতৃ সাধনা সিদ্ধি অনুশীলনের একটি মহান দিন। সমস্ত সাধক সারা বছর এই দিনটির জন্য খুব অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন কারণ মা কৌশিকির দৈব কৃপায় যদি সাধক গুরুর দেওয়া দীক্ষা মন্ত্র জপ অভ্যাস করেন, তাহলে এর আধ্যাত্মিক ফল (ফল) দশগুণ বেশি হয়। দিন. গুরু প্রদত্ত দীক্ষা মন্ত্র ও সাধনার মাধ্যমে সাধক ব্রহ্মময়ী মায়ের উপাসনা করেন এবং ব্রহ্ম জ্ঞানের আশীর্বাদ পেতে প্রার্থনা করেন। কৌশিকী অমাবস্যার একদিন আগে “অঘোর চতুর্দশী” নামে পরিচিত আরও একটি শুভ দিন রয়েছে। “ঘর” শব্দের আভিধানিক অর্থ হল অন্ধকার এবং “অঘোর” অর্থ অন্ধকার থেকে আলোর দিকে। তাই, ঐশ্বরিক আধ্যাত্মিক জ্ঞানের আলো অর্জনের জন্য, সমস্ত সাধক দেবী কৌশিকির কাছে প্রার্থনা করেন যা তাদের মহা-সিদ্ধির পথে নিয়ে যায়।

শ্রীশ্রীচণ্ডীতে বর্ণিত মহা সরস্বতী দেবীর (Devi Saraswati) কাহিনীতে বলা আছে, পুরাকালে একবার শুম্ভ ও নিশুম্ভ কঠিন সাধনা করে ব্রহ্মাকে তুষ্ট করলে চতুরানন তাঁদের বর দেন, কোনও পুরুষ তাঁদের বধ করতে পারবেন না৷ শুধু কোনও অ-যোনি সম্ভূত নারী তাঁদের বধ করতে পারবেন। অর্থাৎ এমন এক নারী, যিনি মাতৃগর্ভ থেকে জন্ম নেননি, তাঁর হাতেই এই দুই অসুর ভাই-এর মৃত্যু হবে। পৃথিবীতে এমন নারী কোথায়? আদ্যা শক্তি মহামায়াও মেনকা রানির গর্ভে জন্ম নিয়েছেন, তাই তিনিও ওঁদের নাশ করতে পারবেন না। তা হলে উপায়?

পূর্ব জন্মে পার্বতী (Parbati) যখন সতী (Sati) রূপে দক্ষ যজ্ঞ স্থলে আত্মাহুতি দেন, তার কারণে এই জন্মে ওঁর গাত্র বর্ণ কালো মেঘের মতো। তাই ভোলানাথ তাঁকে কালিকা ডাকতেন। একদিন দানব ভাইদের দ্বারা পীড়িত ক্লান্ত দেবতারা যখন কৈলাশে আশ্রয় নিলেন, শিব সব দেবতাদের সামনেই পার্বতীকে বললেন, “কালিকা তুমি ওদের উদ্ধার করো।” সবার সামনে ‘কালী’ বলে ডাকায় পার্বতী অত্যন্ত ক্ষুব্ধ, অপমানিত ও ক্রোধিত মনে মানস সরোবরের ধারে কঠিন তপস্যা করলেন।

তপস্যান্তে শীতল মানস সরোবরের জলে স্নান করে নিজের দেহের সব কালো পরিত্যাগ করলেন ও পূর্ণিমার চাঁদের মতো গাত্র বর্ণ ধারণ করলেন। ওই কালো কোশিকাগুলি থেকে এক অপূর্ব সুন্দর কৃষ্ণবর্ণ দেবীর সৃষ্টি হয়। ইনি দেবী কৌশিকী। আজ সেই তিথি, যে দিন এই দেবীর উৎপত্তি হয় এবং তিনি শুম্ভ ও নিশুম্ভকে বধ করেন। তাই এই অমাবস্যার নাম কৌশিকী অমাবস্যা। আবার আজকের এই দিনে দশ মহাবিদ্যার দ্বিতীয়া স্তরের অন্যতম দেবী তারা মর্ত ধামে আবির্ভূত হন। বীরভুম জেলায় অবস্থিত তারাপীঠে এই উপলক্ষে বিশাল উত্‍সব হয়৷

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *