www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

February 28, 2024 10:16 pm
partha tmc

গ্রেফতার হয়েছেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গ্রেফতারির অপেক্ষায় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী, পর্ষদ সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য (Manik Bhattacharya) সহ কয়েকজন তৃণমূল নেতা। এই অবস্থায় হস্তক্ষেপ করল কেন্দ্র। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে চিঠি লিখে রাজধর্মের পাঠ পড়ালেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী।

একটা দুর্নীতির অভিযোগে বেসামাল হয়ে পড়েছে রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থা (West Bengal Education Dept)। যিনি একদা নিজেই একদা পর্ষদের আইনজীবী, তথা কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়( Justice Avijit Ganguly) শিক্ষা সংক্রান্ত মামালাগুলির শুনানির দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই আদালতে দুর্নীতির মামলার হিড়িক পড়ে গিয়েছে।

সরাসরি সিবিআইয়ের (CBI) হাতে তদন্ত চলে যাওয়ার পড়েই যেটুকু অবশিষ্ট ছিল তাও ভেঙে যেতে বসেছে। ইডির (ED) তদন্তে ধরা পড়েছে বিপুল সম্পত্তি। গ্রেফতার হয়েছেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গ্রেফতারির অপেক্ষায় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী, পর্ষদ সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য (Manik Bhattacharya) সহ কয়েকজন তৃণমূল নেতা। এই অবস্থায় হস্তক্ষেপ করল কেন্দ্র। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে চিঠি লিখে রাজধর্মের পাঠ পড়ালেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী।

বাংলার শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির বিষয়ে মঙ্গলবার (২ অগস্ট) পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Chief Minister Mamata Banerjee) চিঠি দিলেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান (Dharmendra Pradhan)। চিঠিতে তিনি বলেছেন, “শিক্ষকরা সমাজের অন্যতম স্তম্ভ। তাঁরাই শিশুদের জীবনের লক্ষ্য স্থির করে দেন, তাদের বিশ্বের সফল নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলে এবং জীবনে সফল হওয়ার জন্য অনুপ্রেরণা জোগান। তাই পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি নিশ্চিতভাবে শিক্ষার মানের ক্ষতি করবে এবং ভবিষ্যত প্রজন্মকে হতাশ করবে।” তাই মানুষের মনে আস্থা ফেরাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

চিঠিতে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়কে ‘শ্রদ্ধেয় দিদি’ বলে সম্বোধন করেছেন। তিনি বলেছেন, “কোনও ন্যায়সঙ্গত সমাজের ভিত্তি হল শিক্ষা। শিক্ষা ব্যবস্থার কেন্দ্রে রয়েছেন শিক্ষকরাই এবং তাঁদের নিয়োগে স্বচ্ছতা থাকাটা শিক্ষা ব্যবস্থার প্রতি শ্রদ্ধা, মর্যাদা এবং আস্থা নিয়ে আসবে। তবে, পশ্চিমবঙ্গের বুহ শিক্ষক ও শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে শিক্ষক নিয়োগ ব্যবস্থায় বেনিয়ম নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। এই ধরণের বেনিয়মের ফলে যুবদের ভবিষ্যতের ক্ষতি হচ্ছে।”

দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে এমন বেশ কিছু ঘটনার উল্লেখও করেছেন ধর্মেন্দ্র প্রধান। তিনি জানিয়েছেন, রাজ্য স্তরের সিলেকশন টেস্ট বা এসএলএসটি-র মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল ২০১৪ সালে। তবে প্রকৃত নিয়োগ শুরু হয়েছিল দুই বছর পরে। এই নিয়োগ প্রক্রিয়ার সঙ্গেই আপোস করা হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছেন ধর্মেন্দ্র প্রধান। এর বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ দায়েক করা হয়েছে। এর সঙ্গে সঙ্গে এসএসসি-র গ্রুপ সি ও গ্রুপ ডি পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও অনিয়ম হয়েছে বলে চিঠিতে উল্লেখ করেছেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী। শিক্ষাক্ষেত্রে দুর্নীতি দূর করতে এবং পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষার্থীরা যাতে সর্বোচ্চ শিক্ষালাভের সুযোগ পান, তা নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যকে সহায়তা করবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *