www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

February 21, 2024 8:47 pm
ma siddhidatri

নবদুর্গার নবম তথা শেষ রূপ হল সিদ্ধিদাত্রী। তিনি নবদুর্গার শেষ ও দেবী দুর্গার নবম শক্তি। এই দেবী সবধরনের সিদ্ধি দান করে থাকেন। মার্কন্ডেয় পুরাণে আট ধরনের সিদ্ধি তথা অনিমা, মহিমা, গরিমা, লঘিমা, প্রাপ্তি, প্রকাম্য, ইশিত্ব ও বাশিত্বর কথা উল্লেখ রয়েছে। মা সিদ্ধিদাত্রী সব ভক্ত এবং সাধকদের এই সিদ্ধি প্রদান করেন। মাতার বাহন সিংহ তবে তিনি পদ্মাসনও হন।

নবম ও শেষ দিনে এই নবরাত্রিতে পুজো হয় দেবী সিদ্ধিদাত্রীর। আজ মহা নবমী এবং নবরাত্রির নবম দিন। এটি নবরাত্রির শেষ দিন। এই দিনটি দেবী দুর্গার অন্যতম রুপ সিদ্ধিদাত্রী মাতার উদ্দেশ্যে উৎসর্গীকৃত। দেবী সিদ্ধিদাত্রী দেবী দুর্গার শেষ রপ হিসেবে বিবেচিত হয়। বিশ্বাস করা হয় যে, যারা সম্পূর্ণ নিষ্ঠার সহিত তাঁর পূজা করে, তাদের তিনি আশীর্বাদ করেন। আসুন দেখে নেওয়া যাক এই পুজোর মাহাত্ম্য, আচার ও রীতি। হিন্দু ক্যালেন্ডারের ভিত্তিতে, চৈত্র মাসের শুক্লপক্ষের নবমী তিথিতে রাম নবমী পালিত হয়। দেবী সিদ্ধিদাত্রী আধ্যাত্মিক সুখের জন্য আকাঙ্ক্ষিত সকলের শুভেচ্ছা প্রদান করেন। একনিষ্ঠ শিবভক্ত এই রূপকে আদিশক্তি নামেও অভিহিত করা হয়।

নবমীতে দেবী সিদ্ধিদাত্রীর পুজো

নবদুর্গার নবম তথা শেষ রূপ হল সিদ্ধিদাত্রী (Ma Siddhidatri)। তিনি নবদুর্গার শেষ ও দেবী দুর্গার নবম শক্তি। এই দেবী সবধরনের সিদ্ধি দান করে থাকেন। মার্কন্ডেয় পুরাণে আট ধরনের সিদ্ধি তথা অনিমা, মহিমা, গরিমা, লঘিমা, প্রাপ্তি, প্রকাম্য, ইশিত্ব ও বাশিত্বর কথা উল্লেখ রয়েছে। মা সিদ্ধিদাত্রী সব ভক্ত এবং সাধকদের এই সিদ্ধি প্রদান করেন (Spiritual)। মাতার বাহন সিংহ তবে তিনি পদ্মাসনও হন।

রাম নবমীতে সিদ্ধিদাত্রীর পূজায় যে বিষয়গুলি তালিকাভুক্ত করা হয় (Ram Nabami)

দেবী সিদ্ধিদাত্রীর আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য, আপনার দেবীর মূর্তিকে গন্ধম, পুষ্পম, দীপম, সুগন্ধম এবং নৈবেদ্যম (ভোগ) নিবেদন করে পঞ্চোপচার পূজা করা উচিত। এছাড়াও আপনার সিঁদুর, মেহেন্দি, কাজল, বিন্দি, চুড়ি, পায়ের আংটি, চিরুনি, আলতা, আয়না, পায়ের পাতা, সুগন্ধি, কানের দুল, নাকের পিন, নেকলেস, লাল চুনরি, মহাভার, চুলের পিন ইত্যাদি নিবেদন করা হয়।

পুরাণের কথা

দেবী ভগবত্‍ পুরাণে আছে, স্বয়ং মহাদেব দেবী পার্বতী কে সিদ্ধিদাত্রী রূপে পুজো করেছিলেন এবং তার ফলে মহাদেব সকল সিদ্ধি লাভ করেন। সিদ্ধিদাত্রীর আশীর্বাদেই সর্ব সিদ্ধি লাভ করেন মহাদেব।

প্রচলিত কাহিনী

হিন্দুদের বিশ্বাস, নবরাত্রির নবম দিনে এই দেবীর পুজো করলে এবং সঠিকভাবে পুজো করলে সব প্রকারের সিদ্ধি প্রাপ্তি হয়। মাতা এই দিন তাঁর ভক্তদের বিশেষ ফলপ্রদান করেন।

দেবী সিদ্ধিদাত্রীর রূপ

দেবী সিদ্ধিদাত্রীর বাহন সিংহ। মায়ের চারটি ভুজা আছে, ডান দিকের উপরের হাতে গদা, আর নীচের হাতে চক্র এবং বাঁ দিকের উপরের হাতে কমলপুষ্প ও নীচের হাতে শঙ্খ। মায়ের শান্ত রূপ।

মায়ের পুজোয় কোন ভোগ

পদ্মাসনে বসা দেবীকে তিলের তৈরি নাড়ু বা খাবার ভোগ হিসেবে দেওয়ার চল রয়েছে। মনে করা হয়, এতে ভক্তের অপঘাতে মৃত্যু হয় না।

মন্ত্র

ওম দেবী সিদ্ধিদাত্রায়ায় নমঃ। ওম দেবী সিদ্ধিদাত্রায় নমঃ ॥

সিদ্ধ গন্ধর্ব যক্ষ্যাদিরসুরৈরমরপি। সেবামনা সর্বদা ভূয়াত সিদ্ধিদা সিদ্ধিদায়িনী।।

সিদ্ধ গন্ধর্ব যক্ষদ্যারসুররমররাপি। সেবামনা সদা ভূয়াত সিদ্ধিদা সিদ্ধিদায়িনী ॥

বা দেবী সর্বভূতেষু মা সিদ্ধিদাত্রী রূপেন সংস্থা। নমস্তস্য নমস্তস্য নমস্তস্য নমো নমঃ ॥

ইয়া দেবী সর্বভূতেষু মা সিদ্ধিদাত্রী রূপেনা সংস্থিতা। নমস্তস্যায় নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ ॥

সিদ্ধিদাত্রী তার ডান হাতে চক্র এবং গদা ধারণ করতে পরিচিত। পদ্মের উপর বসে তিনি বাম হাতে শঙ্ক ও পদ্মও ধারণ করেন।

হিন্দু বিশ্বাস অনুসারে, দেবী সিদ্ধিদাত্রী শুক্লপক্ষ পরিচালনা করেন। যারা এই গ্রহের অশুভ প্রভাবে ভুগছেন তাদের অবশ্যই এর বিরূপ প্রভাব থেকে মুক্তি পেতে তাঁকে মন ভরে পূজা করতে হবে।

সিদ্ধিদাত্রী মাতা এবং মহা নবমীর তাৎপর্য

১) সিদ্ধিদাত্রী নামটি দুটি পৃথক শব্দের সমন্বয়ে গঠিত, ‘সিদ্ধি’ – শব্দের অর্থ হল ঐশ্বরিক শক্তি, ধ্যানের দক্ষতা, প্রতিভা এবং জ্ঞান, আর ‘দাত্রী’ – শব্দের অর্থ হল দাতা। দেবী সিদ্ধিদাত্রী তাঁর ভক্তদের সমস্ত ইচ্ছা ও বাসনা পূর্ণ করেন।

বিশ্বাস করা হয় যে, মহা নবমীতে মা দুর্গা তাঁর ভক্তদের দক্ষতা, প্রতিভা, জ্ঞান এবং শিল্প-এর আশীর্বাদ করেন।

হিন্দু ধর্মগ্রন্থ অনুসারে, দেবী সিদ্ধিদাত্রীর উপাসনা করে ভগবান শিব তাঁর ধ্যানমূলক দক্ষতা অর্জন করেছিলেন। এই রূপে দেবী সিদ্ধিদাত্রী অজ্ঞতা, অহংকারকে দূরে সরায় এবং নম্রতা, দৃঢ়তা এবং কঠোর পরিশ্রম করার দক্ষতার আশীর্বাদ করেন।

মহা নবমীকে নবরাত্রির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই দিনে দেবী দুর্গার মহিষাসুরমর্দিনী হিসেবেও পূজা করা হয়।

এই দিনে কোনও কোনও জায়গায় বলি দেওয়া এবং কুমারী পূজার প্রথাও রয়েছে।

 

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *