www.machinnamasta.in

ওঁ শ্রীং হ্রীং ক্লী গং গণপতয়ে বর বরদ সর্বজনস্ময়ী বশমানয় ঠঃ ঠঃ

April 16, 2024 12:52 am

বামাক্ষ্যাপা ছেলেবেলায় গৃহত্যাগ করে তিনি কৈলাশপতি বাবা নামে এক সন্ন্যাসীর শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। কৈলাশপতি বাবা তারাপীঠে থাকতেন। বামাক্ষ্যাপা তারাপীঠেই দ্বারকা নদের তীরে যোগ ও তন্ত্রসাধনা করেন। পরে তিনি নিকটবর্তী মল্লরাজাদের মন্দিরময় গ্রাম মালুটি (অধুনা ঝাড়খণ্ড রাজ্য) তে যান যোগ সাধনার জন্যে। সেখানে দ্বারকার তীরে মৌলাক্ষী দেবীর মন্দিরে সাধনাকালে প্রায় ১৮ মাস অবস্থান করেন।ক্রমে তিনি তারাপীঠের প্রধান ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন। ভক্তরা বিশ্বাস করত তার অলৌকিক ক্ষমতা আছে। তাই তারা রোগারোগ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনে তার কাছে আসত। বামাক্ষ্যাপা মন্দিরের নিয়মকানুন মানতেন না। এমনকি দেবতার থালা থেকেই নৈবেদ্য তুলে খেয়ে নিতেন। কথিত আছে, নাটোরের মহারানীকে স্বপ্নে দেবী তারার প্রত্যাদেশ পান যে, দেবীপুত্র বলে বামাক্ষ্যাপাকে যেন আগে খাওয়ানো হয়। এরপর থেকে মন্দিরে পূজার আগেই বামাক্ষ্যাপাকে নৈবেদ্য প্রদান এবং তাকে অবাধে মন্দিরে বিচরণ করতে দেওয়া হত। আরও কথিত আছে, দেবী তারা ভয়ংকর বেশে বামাক্ষ্যাপাকে দর্শন দিয়েছিলেন এবং পরে মাতৃবেশে কোলে তুলে নিয়েছিলেন। তারাপীঠ শ্মশানে ও দুমকা জেলার মালুটি গ্রামের তার স্মৃতিমন্দির আছে।যোগীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় রচিত বামাক্ষ্যাপা pdf পডুন।স্বামী বিবেকানন্দের সাথে সাক্ষাৎ :ঠাকুর রামকৃষ্ণের সংস্পর্শে আসার পর নরেন্দ্রনাথের একবার ইচ্ছা হয় বামাক্ষ্যাপাকে দর্শন করার। নরেন্দ্রনাথের বয়স তখন মাত্র ১৯ বছর। সেকথা তিনি তাঁর কলেজের সহপাঠী শরৎচন্দ্র চক্রবর্তীকে জানান। শরৎচন্দ্র তাঁকে বলেন, ‘তুমি তো ঠাকুরের দেখা পেয়েছো। আবার কেন সেই ব্রহ্মজ্ঞ পুরুষকে দেখতে চাও?’ব্রহ্মজ্ঞ পুরুষদের চারটি অবস্থা বালকবৎ, জড়বৎ, উন্মাদবৎ এবং পিশাচবৎ। এই চারটি অবস্থাই ব্যামাক্ষ্যাপার মধ্যে দেখা যেত। কিন্তু ঠাকুর রামকৃষ্ণের মধ্যে পিশাচবৎ ভাবটি অনুপস্থিত ছিল। তাই বামাক্ষ্যাপাকে দেখার জন্য নরেন্দ্রনাথ আকুল হয়ে ওঠেন। শরৎচন্দ্রকে নিয়ে নরেন্দ্রনাথ চলে এলেন তারাপীঠে। দেখা হল দু’জনের। সে এক মহাসন্ধিক্ষণ। বামাক্ষ্যাপা ও নরেন্দ্রনাথ দু’জনেই দু’জনের দিকে দীর্ঘক্ষণ অপলক তাকিয়ে। আনন্দে আপ্লুত। দুজনের চোখেই জল। এক অপার আনন্দ নিয়ে ফিরলেন নরেন্দ্রনাথ। আর তাঁর সম্পর্কে বামাক্ষ্যাপা তাঁর বন্ধু শরৎচন্দ্রকে বললেন, এই যুবক একদিন ধর্মের মুখ উজ্জ্বল করবে।মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাথে সাক্ষাৎ :দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ব্রাহ্ম হলেও তিনি বামাক্ষ্যাপাকে দেখার জন্য তারাপীঠে গিয়েছিলেন। সেখানে দুজনার কিছুক্ষণ কথা হয়। কথিত আছে, ফেরার সময় বামাক্ষ্যাপা মহর্ষিকে বললেন,“ফেরার পথে ট্রেন থেকেই দেখতে পাবে একটা বিশাল মাঠ। সেই মাঠের মাঝখানে আছে একটা ছাতিম গাছ আছে। তার নীচে বসে ধ্যান করবে। দেখবে মনের ভিতরে আনন্দের জ্যোতি জ্বলে উঠছে। ওখানে একটা আশ্রম বানাও দেখি। আহা, শান্তি শান্তি!”ফেরার পথে সেই মাঠ এবং ছাতিম গাছ দেখে তিনি চমৎকৃৎ হলেন। সেখানে বসে ধ্যানে মগ্নও হলেন। তিনি ঠিক করেন সেখানে তিনি আশ্রম স্থাপন করবেন। পরবর্তী কালে ওখানেই শান্তিনিকেতনপ্রতিষ্ঠিত হয়।আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের সাথে সাক্ষাৎ :বাংলার বাঘ স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায় ১৯০১ খ্রিষ্টাব্দে তার মা এবং স্ত্রীকে নিয়ে তারাপীঠে বামাক্ষ্যাপাকে দর্শন করার জন্য গিয়েছিলেন। আশুতোষ বামাক্ষ্যাপাকে ভক্তিভরে প্রণাম করতেই তিনি বলে উঠেছিলেন,“যা যা, তোর মনের ইচ্ছা পূর্ণ হবে। তুই শালা জজ হবি। ”তিনি তো তখন হাইকোর্টের আইনজীবী। কিন্তু মনে জজ হওয়ার খুব ইচ্ছে ছিল তার। ১৯০৪ সালে তিনি হাইকোর্টের জজ হন।রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও মুকুন্দদাসের সাথে সাক্ষাৎ :রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও একবার চারণকবি মুকুন্দদাসের সঙ্গে তারাপীঠে গিয়ে বামাক্ষ্যাপার সঙ্গে দেখা করার জন্য সারাদিন অপেক্ষা করেছিলেন। সন্ধ্যায় বামাক্ষ্যাপার সঙ্গে তাদের দেখা হয়। মুকন্দদাসকে দেখে বামাক্ষ্যাপা বললেন,“তোর ফুটুস কলটা নদীতে ফেলে দিয়ে আয়। ”উল্লেখ্য, চারণকবির কোমরে একটা রিভলভার গোঁজা ছিল। তারপর তিনি রবীন্দ্রনাথকে বললেন, ‘তোর খুব নামডাক হবে।’ দুজনকে তারামায়ের প্রসাদ খাইয়ে তিনি ছেড়েছিলেন।বামাক্ষ্যাপা একবার কলকাতায় এসেছিলেন। ১৮৯৮ খ্রিস্টাব্দে মহারাজা যতীন্দ্রমোহন ঠাকুরের উদ্যোগে তিনি কলকাতায় আসেন। দেবী লক্ষ্মী ও সরস্বতীর করুণাধারায় স্নাত মহারাজা যতীন্দ্রমোহন ঠাকুর। কিন্তু এতটুকুও শান্তি ছিল না মনে, পুত্রসন্তান ছিল না বলে। তাই দত্তকপুত্র গ্রহণ করেছিলেন ভ্রাতুষ্পুত্র মহারাজা প্রদ্যোৎকুমারকে। এমনই কপাল, তাঁরও কোনও পুত্র হল না। যতীন্দ্রমোহনের এই মনোব্যথাই নিত্যবরেণ্য সাধক বামাক্ষ্যাপাকে নিয়ে এল কলকাতায়। যতীন্দ্রের ভাগনে ছিলেন সত্যনিরঞ্জন। একসময় ক্ষ্যাপাবাবাকে দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন তিনি। তাঁর মুখে নির্বিকার শ্মশানচারী বামের কথা শুনে আকৃষ্ট হয়েছিলেন মহারাজা। কিন্তু পদমর্যাদার কথা ভেবে তিনি নিজে গেলেন না তারাপীঠে, যে করেই হোক ভাগনেকে দিয়ে ক্ষ্যাপাকে আনার চেষ্টা চালালেন। বার দুয়েক চেষ্টা করে বিফল হলেন সত্যনিরঞ্জন। ফিরে এলেন তারাপীঠ থেকে।এক সময় যতীন্দ্রমোহনের প্রাণের আকুল টানে নড়ে উঠলেন তারাপীঠের শ্মশানবাসী ভৈরব। আবার গেলেন সত্যনিরঞ্জন। বামের কনিষ্ঠ ভ্রাতা রাম। তাঁর সাহায্য নিলেন পাণ্ডাদের পরামর্শে, রাজি হলেন মাতৃসাধক।১৮৯৮ সালের কথা (১৩০৫ সন)। ভারতবরেণ্য মহাশক্তিধর মহাপুরুষ কৌপীনবন্ত ক্ষ্যাপাবাবা পদধূলি দিলেন মহারাজা যতীন্দ্রের রাজপ্রাসাদে। আদর আপ্যায়নের ত্রুটি রাখলেন না ভোগীশ্রেষ্ঠ মহারাজা। আর এটাও তিনি জানতেন বাম শ্মশানচারী তান্ত্রিক।জঙ্গলাকীর্ণ দ্বারকাতীরের শ্মশানেই তাঁর জীবন কাটে। জনসমাকীর্ণ মহানগরী তাঁর ভালো লাগে না। তাই থাকার ব্যবস্থা করেছেন শাখানগর সিঁথির প্রমোদ উদ্যানে Emerald Bower তথা বিলাসক্ষেত্র মরকতকুঞ্জে। তাঁর আরও একটি উদ্দেশ্য, মহাসাধকের চরণ দর্শন পাবেন মহারানিও।মহারাজের এতটুকুও ত্রুটি নেই রাজকীয় আয়োজনে। বামার জন্য মহাপ্রসাদও এসেছে কালীঘাট থেকে। কারনের ব্যবস্থাও সম্পূর্ণ, যথাযথ। পরিচর্যার জন্য অসংখ্য রাজভৃত্য প্রাসাদজুড়ে। যথাসময়ে রসনা পরিতৃপ্ত করলেন সমস্ত সেবক-পাণ্ডা। কুলকুণ্ডলিনীতে কারন ও শুদ্ধি আহুতি দিয়ে কারনানন্দে আত্মহারা হলেন কুমার ব্রহ্মচারী বামা।রাজোচিত আভরণ ছাড়াই যতীন্দ্রমোহন এলেন বামের কাছে। প্রণামাদির পর্বও শেষ হল। ক্ষ্যাপাবাবার সঙ্গে একান্তে তিনি কিছু কথা বলতে চান গোপনে। মহারাজা বললেন, ‘বাবা, আমরা মোক্ষের চিন্তাও করি না, মোক্ষ আমাদের দূর বটে। তবে আশির্বাদ করুন যাতে ভক্তি হয়।’এ কথা যে মহারাজার অন্তরের কথা নয় তা ক্ষ্যাপাবাবা বুঝেই বললেন, ‘ভক্তি বড় দুর্লভ। সংসারের কামনা হৃদয়ে জাগরূক থাকলে তা আসে না। তোমার প্রাণ সতত যেভাবে ভোগ চাইছে, শরীরের সুস্থতা ও বংশরক্ষা চাইছে, ভক্তি কি সে ভাবে চাইছে?’মহারাজা দেখলেন তাঁর হৃদয়ের কথা জেনে ফেলেছেন বামা। প্রকাশিত হয়েছে আসল কথা, অন্তরের কথা। এবার সর্বত্যাগী নিঃস্ব বামার কাছে করজোড়ে ভিক্ষা চাইলেন লজ্জাবনত মহারাজ, রোগ আরোগ্য ও বংশরক্ষার। নির্বিকার ক্ষ্যাপাবাবা জানালেন, বংশরক্ষার যে বাধা, তার সমাধানের পথ। বাক্যের দ্বারা আশির্বাদও করলেন বংশরক্ষার। বামের আশির্বাদ ও বাক্য বিফল হয়নি। বংশরক্ষা হয়েছিল মহারাজের, মুক্তও হয়েছিলেন সেকালের অসাধ্য অম্লশূল থেকে।নিষ্কাম শ্মশানপ্রেমিক ক্ষ্যাপাবাবা। মহারাজের আকুল আকুতিতে সাড়া দিয়ে নিজ শ্মশানভূমির আসন ছেড়ে এসেছেন রাজপ্রাসাদে। ভক্তের প্রয়োজনও শেষ হয়েছে। একে জনবহুল মহানগরী, তার উপরে রাজগৃহ। এতে শ্মশানবাসীর মন উচাটন না হয়ে পারে! আর থাকতে চাইলেন না তিনি। কিন্তু বামাকে ছাড়তে নারাজ মহারাজা। অনুরোধ করলেন কনিষ্ঠ ভ্রাতা রাম আর সঙ্গী পাণ্ডাদের, অন্তত দিন তিন-চারেক বাবা থাকুন এখানে।এবার কালীঘাটে যাওয়ার প্রস্তাব দিলেন মহারাজা। অনুরোধ করলেন বাম-সহ সেবকদের। চারদিন ধরে রাখলেন বামকে। মাকালী বামের চোখে ছোটমা, তারা মা হলেন বড়মা। মাতৃদর্শনের লোভেই বালকের মতো ভুললেন তারাগতপ্রাণ ক্ষ্যাপাবাবা।কালীঘাটের সেবক হালদারদের সংবাদ পাঠালেন মহারাজা। তারাপীঠের বামাক্ষ্যাপাকে নিয়ে তিনি যাচ্ছেন কালীঘাটে। এক ঘণ্টা মন্দিরে কোনও যাত্রী প্রবেশ করতে না পারে তার ব্যবস্থা করলেন। সেই জন্য টাকাও দিলেন পালাদারকে।ভোরের গাড়ি করে কালীঘাটে আনা হল বামাকে। হালদাররা সপরিবারে উপস্থিত। প্রণাম করলেন শ্রদ্ধাভরে। উপস্থিত ভক্তপ্রাণ যাত্রীরাও বামাদর্শনে উদগ্রীব। বামা দেখলেন গর্ভমন্দির শূন্য। একটি লোকও নেই তাঁর দর্শনের কারণে। যে কোনও তীর্থে সকলেরই সমান অধিকার। তাই আর সকলের সঙ্গেই ছোটমাকে দর্শনের কথা জানালেন ক্ষ্যাপাবাবা। অতএব দ্বার অবারিত হল সকলের জন্য।বামাকে এনে দাঁড় করানো হল মাতৃমূর্তির সামনে। অপলক দৃষ্টিতে বামা চেয়ে রইলেন ছোটমার দিকে। হৃদয়সমুদ্র উথলে উঠল ভক্তিলহরিতে। দু’চোখ বেয়ে দরদর করে নেমে এল পরমানন্দের মন্দাকিনী ধারা। ‘জয় তারা’ নাদ নেই মুখে। আত্মহারা হয়ে উঠলেন বামা। ধীরে ধীরে চোখদুটি হয়ে এল অর্ধনিমীলিত। মন চলে যায় এক অজানা অজ্ঞাতলোকের অতল তলে। অবয়ব ক্রমে হয়ে ওঠে ধীরস্থির অচঞ্চল। মাতৃপ্রেমিক ক্ষ্যাপা বিবশভাবে বলে ওঠেন, ‘এই যে আমার কালী মা। রূপের কি ছটা, মাথায় আবার মোহিনী জটা, যেমনি লকলকে জিভ, তেমনি টানা টানা চোখ, যেন জ্বলজ্বল করছে। তুই কাদের মেয়ে রে? চল না মা, তোকে তারা মা’র কাছে কোলে করে নিয়ে যাই। তুই যাবি তো, বেশ বেশ – তবে আয় আমার কোলে।’আত্মবিস্মৃত উন্মত্ত সন্তান ক্ষ্যাপাবাবা মা মা বলে স্নেহ বাৎসল্যে পাষাণময়ী বিগ্রহকে কোলে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করতে বাধা দিলেন পূজারি পাণ্ডারা। স্পর্শ করতে দিলেন না নিত্যশুদ্ধ চৈতন্যরূপিণী দেবী কালিকার বিগ্রহ। বামের অন্তরের ভাব তারা কেউ বোঝেননি। সেবাইত ছাড়া আর কেউ বিগ্রহ স্পর্শ করতে পারেন না, এটাই ছিল সেকালের নিয়ম। সে নিয়ম তখন রক্ষাও হল বটে। ক্ষ্যাপার দিব্যদৃষ্টিতে জননীর সেই স্নেহময়ী রূপ ও ভাব মিলিয়ে গেল মুহুর্তে। বহির্নয়নে ভেসে উঠল পাষাণময়ীর বিকট রূপ ও কঠিন মুখমণ্ডল। বিচ্ছেদ হল দিব্যভাবের। এবার শ্মশানচারী ঘোর তান্ত্রিক ঊর্ধ্বরেতা ক্ষ্যাপাবাবা রুদ্রমূর্তি ধারণ করে বললেন, ‘চাই না তোদের রাক্ষসী কালীকে, যেমন কেলে রূপ, তেমনি লকলকে, মস্ত জিভ, যেন গিলতে আসছে। আহা, আমার তারা মা’র যেমন ছোট্ট জিভ তেমন রূপের ছটা, মাথায় জটা, পা দু’খানি খুরখুরে। চাই না তোদের কেলে কালী, আমার আকাশ তারাই ভালো’।মুহুর্তে মন্দিরের পরিবেশ হয়ে উঠল গম্ভীর, নীরব। দর্শনার্থী যাত্রীরা ভীত, বিহ্বল। সেই সময় হালদারমশাইরা উপস্থিত ছিলেন সেখানে। তাঁরা ভর্ৎসনা করলেন পুরোহিতদের। অপরাধ স্খলনের জন্য অনুরোধ করলেন নিরভিমান বামকে, ‘না বাবা, আপনি স্পর্শ করতে পারেন মাকে।’ক্রোধ উপশম করলেন ক্ষ্যাপাবাবা। কোনও অভিশাপ বর্ষিত হল না সেবাইত পূজারিদের উপরে। অন্তর্যামী জানেন মা-ই বাধা দিয়েছেন ওদের মাধ্যমে। তাই নিরভিমানের অভিমান হল মায়েরই উপর। তিনি আর স্পর্শ করলেন না মায়ের পাষাণ বিগ্রহ। ধীর স্থির শান্ত অচঞ্চল পদক্ষেপে বেরিয়ে এলেন মন্দির থেকে। এই ভাবেই সেদিন সাঙ্গ হয়েছিল নিরহংকার ক্ষ্যাপাবাবার কালীঘাটের কালীদর্শন।যাঁরা ঈশ্বর দর্শন পেয়েছেন- তাঁদের অবস্থা হয় বালকের মত, পিশাচের মত বা উন্মাদের মতো। ক্ষ্যাপাবাবার মধ্যে এই তিন লক্ষণই প্রকাশিত হয়েছিল। কখনো বালকবত মা তারার কাছে এসে আবদার বায়না, কখনো উন্মাদের মত শ্মশানে বিচরণ অট্টহাস্য, কখনো ক্রোধে এমন ‘জয় তারা’ রব তুলতেন যে গোটা শ্মশানভূমি কেঁপে উঠতো। সেই সময় ভক্তেরাও বাবার সেই রুদ্র রূপে কম্পিত হতেন। বাবার কৃপা পেয়ে বহু মুমূর্ষু রোগী একেবারে সুস্থ হয়েছেন। এমনকি মৃত ব্যক্তিও পুনর্জীবিত হয়েছেন। বাবা কাওকে তাবিজ কবজ জলপোড়া তেলপোড়া দিতেন না। রেগে কাওকে পদাঘাত বা কাওকে থুথু ছিটিয়ে দিতেই সেই রোগী একেবারে যমের দুয়ার থেকে ফিরে আসতো। বিরক্ত হয়ে কাওকে মায়ের প্রসাদী ফুল বা শ্মশানের মাটি তুলে দিতেন, তাতেই সমস্যা মিটে যেতো। এমনই ছিল বামদেবের লীলা। বামদেবের আর একটি লীলা বড় অদ্ভুত। একবার তিঁনি মায়ের শিলামূর্তিতেই মূত্র ত্যাগ করে দিয়েছিলেন। সকলে বাবাকে বকাঝকা করলে বাবা বলেন- “শালা আমি আমার মায়ের কোলে হাগবো মুতবো- তাতে তোদের কি?” একবার কোনো কারণে ক্ষ্যাপাবাবা খুবুই অভিমান করেছিলেন মায়ের উপরে । প্রতিজ্ঞা করলেন মায়ের মন্দিরে বজ্রপাত ঘটাবেন। সেদিন নিশি রাত্রে সত্যই মায়ের মন্দিরে বাজ পড়ে মন্দিরের চূড়ার অংশ ভেঙ্গে পড়েছিলো। তারাপীঠ মা তারার মন্দির । তন্ত্র সাধনার স্থান। এই স্থানে যেনো আকাশে বাতাসে মিশে আছে ক্ষ্যাপাবাবার লীলার কথা। 1911 সালে মহাসমাধি (চূড়ান্ত মুক্তি) এ প্রবেশ করে সাধক বামাক্ষ্যাপা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। মৃত্যুর অল্পকাল আগেই তিনি ভোগ প্রত্যাহার করেন। তিনি এইসময় ধ্যানের জন্য ব্যয় করেছিলেন এবং তাঁর শিষ্যদের সাথে কথা বলা বন্ধ করেছিলেন। বামাক্ষ্যাপা মহাসমাধি মন্দির তারাপীঠের তারা মন্দিরের নিকটে অবস্থিত এবং আজও কেউ এটি দেখতে যেতে পারেন।তারাপীঠের তারামা আর বামাক্ষ্যাপা এক হয়ে গিয়েছে। বহু মানুষের সাধনক্ষেত্র হলেও তারাপীঠ আর বামাক্ষ্যাপা আজ সমার্থক। যেভাবে দক্ষিণেশ্বর মন্দির এবং ঠাকুর রামকৃষ্ণ হয়ে আছেন। বামাক্ষ্যাপার বহু লীলার সাক্ষী তারপীঠ। মন্দির, জীবিতকুণ্ড, দ্বারকা নদী, শ্মশান সর্বত্র ছড়িয়ে রয়েছে এই যোগীপুরুষের স্মৃতি। তারাপীঠ তাই যেন মা ও ছেলের লীলাপ্রাঙ্গণ।”Bama Khepa was a Shakta Tantric Master which many have come to regard as the greatest Tantric of our Modern Era. He became the symbol of devotion for millions of Bengali Shaktas, and is the saint seen by many Shaktas as the ideal child of the Mother, more faithful to his beloved Maa than any other devotee.” …তথ্য স্বীকার–তথ্যসূত্র: https://bn.m.wikipedia.org/…/%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6…)(https://www.aajkaal.in/news/state/kalipujo-1n6whttps://www.nilkantho.in/bengali-feature-15/amp/https://bartamanpatrika.com/detailNews.php?cID=34http://www.sadgurus-saints-sages.com/Details_2.aspx…)সাধক বামাক্ষ্যাপাকে নিয়ে বহু গান, পল্লীগীতি রচিত হয়েছে। তার জীবনী বৃত্তান্ত নিয়ে বাংলা টেলিসিরিয়াল তৈরী হয়েছে যা বামাক্ষ্যাপা জীবনকে বিস্ততারিত দেখানো হয়েছে ।’মহাপীঠ- তারাপীঠ’ সিরিয়ালে কুসংস্কার, বুজরুকি, ভণ্ডামি দেখিয়ে বামদেব ও সমস্ত মনীষীদের যুগকে অপমান করা হচ্ছে। মিথ্যা সিরিয়াল বন্ধের আর্জি জানাল খোদ সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার। সাবর্ণ রায়চৌধুরী বাংলার একটি ঐতিহাসিক জমিদার পরিবার। ব্রিটিশদের আগমনের পূর্বে এই পরিবার ছিল কলকাতার জমিদার। ১৬৯৮ সালের ১০ নভেম্বর সুতানুটি, কলিকাতা ও গোবিন্দপুর গ্রাম তিনটির সত্ব সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের কাছ থেকে ইজারা নেয় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি। ২০০১ সালে সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার পরিষদের পক্ষ থেকে কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে দাবি করা হয় যে, জব চার্নক সত্যই কলকাতার প্রতিষ্ঠাতা কিনা তা খতিয়ে দেখা হোক। হাইকোর্ট একটি বিশেষজ্ঞ কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে ২০০৩ সালের ১৬ মে রায় দেন যে, জব চার্নক কলকাতার প্রতিষ্ঠাতা নন এবং ২৪ অগস্ট (যে তারিখটিতে জব চার্নক সুতানুটিতে উপনীত হয়েছিলেন) কলকাতার জন্মদিনও নয়।সাবর্ণ রায়চৌধুরীর দুর্গাপূজা সে তো জগত্‍ বিখ্যাত আজও। সব কটি বাড়িতেই পুজো হয় এবং মূল সাবর্ণদের বসবাস বেহালা বড়িশার সখেরবাজার অঞ্চলে। সাবর্ণদের দুর্গাপুজো বড়িশা আটচালা আদি সতীপীঠগুলির সঙ্গেও জড়িয়ে আছে সাবর্ণ পরিবারের ইতিহাস। কলকাতার সাবর্ণ রায় চৌধুরীদের সঙ্গে কালীঘাটের সংযোগ সেই ১৫৬৯ খ্রিস্টাব্দ থেকে। কালীক্ষেত্রের মা কালী মূর্তিটি সাবর্ণদের কূলমাতা মা ভুবনেশ্বরীর আদলে। সাবর্ণ বংশের শ্রী সন্তোষ রায়চৌধুরী কালীঘাটের বর্তমান মন্দির তৈরি করেন ও তার কাজ সমাপ্ত করেন শ্রী রাজীবলোচন রায়চৌধুরী ১৮০৯ খ্রিষ্টাব্দে। প্রাচীন কালীঘাট মন্দির ফাইলচিত্র সুতরাং সতীপীঠ কালীঘাট, তারাপীঠের আদি ইতিহাস সাবর্ণ পরিবারের নখদর্পনে। তাঁরা যখন স্টার জলসায় ‘মহাপীঠ- তারাপীঠ’ সিরিয়ালটি দেখছেন পদে পদে হোঁচট খাচ্ছেন বিকৃত ইতিহাস দেখে। সতীপীঠ তারাপীঠ সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার পরিষদের সম্পাদক শ্রী দেবর্ষি রায়চৌধুরী ‘দ্য ওয়াল’কে জানালেন, ‘যে কুসংস্কারের বিরুদ্ধে বাংলার মনীষীরা লড়েছিলেন তাঁদের প্রত্যেককে অপমান করা হচ্ছে এই ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ সিরিয়ালে। বামাক্ষ্যাপা নিজের মধ্যে কালীসাধনা করতেন কিন্তু সেটা তো ভূত প্রেত আমদানি করে বুজরুকি ছিল না। বিকৃত সামাজিক ছিল না। যা দেখে আগামী প্রজন্ম ভুল শিখছে।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *